• ১৯৭৭ সালে ৭০ হাজার টাকা পুজি নিয়ে ব্যবসা শুরু করে এখন সে দেশের একজন প্রথম সারির শিল্পপতি।

    FB IMG 1499521323112 - ১৯৭৭ সালে ৭০ হাজার টাকা পুজি নিয়ে ব্যবসা শুরু করে এখন সে দেশের একজন প্রথম সারির শিল্পপতি।

    নাসির নগর প্রতিনিধিঃ

    ১৯৭৭ সালে ৭০ হাজার টাকা পুজি নিয়ে ব্যবসা শুরু করে এখন সে দেশের একজন প্রথম সারির শিল্পপতি। সে আর কেউ নন সে হল ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নাসিরনগর উপজেলার স্বপ্নবাজ এক মানুষ তিনি। স্বপ্ন দেখেই বসে থাকেন না। স্বপ্ন বাস্তবায়নে নেমে পড়েন কাদাজলে। সফল হয়ে তারপর ওঠেন। এমন এক স্বপ্নবাজের নাম সৈয়দ এ কে একরামু জ্জামান। দেশের প্রথম সারির একজন শিল্পপতি। ব্যবসা ক্ষেত্রের একজন সফল নায়ক। তার হাত ধরেই বাংলাদেশে যাত্রা শুরু করে দুবাই ভিত্তিক রাস আল খাইমা (আরএকে) গ্রুপ। ৭০ হাজার টাকার পুঁজি নিয়ে ১৯৭৭ সালে ব্যবসা শুরু করেছিলেন। সেই ব্যবসা এখন কয়েকশ’ কোটি টাকায় ছাড়িয়েছে। তার প্রতিষ্ঠানে তৈরি বিভিন্ন পণ্য দেশ ছাড়িয়ে দখল করে নিয়েছে ইউরোপ আমেরিকার বাজার। একান্ত আলাপে একরামুজ্জামান তার জীবনের বাঁক নেয়া নানা মোড়ের আদ্যপান্ত জানিয়েছেন।

    হতাশ নয়, আশাই যার পথচলা। আর আশা নিয়ে পথচলাতেই তার প্রতিষ্ঠিত আর এ কে সিরামিক আজ দেশের সিরামিক শিল্পের প্রতিকৃত। আরএকে সিরামিক বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ একরামুজ্জামান সততা, নিষ্ঠা আর একাগ্রতা দিয়ে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করেছেন সফল ব্যবসায়ী রূপে। দেশের হাজার হাজার মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি, দেশে শত হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ ও বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের মাধ্যমে দেশ সেবায়ও রাখছেন অনন্য ভূমিকা। সেরা করদাতা হিসেবেও সরকার করেছে পুরস্কৃত। একে একে গড়ে তুলেছেন সিরামিকস, ফার্মাসিউটিক্যালস, ডেভেলপমেন্ট কোম্পানি, সিকিউরিটি সার্ভিস, টাইলস অ্যান্ড স্যানেটারি ওয়্যার, পেইন্টস, পাইলিং, কয়েল কোম্পানি, বিদ্যুৎ কেন্দ্র, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া, পরসোলিন, স্পিনিং, প্যাকেজিং এবং কনস্ট্রাকশন কোম্পানিসহ নানা শিল্পকারখানা।

    সিরামিক শিল্পের উদ্যোক্তাদের সংগঠন বাংলাদেশ সিরামিক ওয়্যারস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়ে শনের (বিসিডব্লিউএমএ) হিসাব মতে, দেশে এখন সিরামিক উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৫০-এর অধিক। এর মধ্যে সিরামিক টেবিলওয়্যার, টাইলস ও স্যানিটারিওয়্যার উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এই তিনটি শিল্পকে একত্রে সিরামিক খাত বলা হয়। এসব প্রতিষ্ঠানে কর্মরত আছেন ৫০ হাজারের বেশি মানুষ। দেশে সিরামিক পণ্যের অভ্যন্তরীণ বাজার প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকার। এর মধ্যে আরএকে সিরামিক একাই ২০ শতাংশ বজার দখল করে আছে।

    পজিটিভ নিউজের সাথে আলাপকালে এ কে একরামুজ্জামান বলেন, সততা, বিশ্বাস আর কর্মীবাহিনীর ওপর আস্থা রেখেই ব্যবসাকে এত দূরে আনতে সক্ষম হয়েছি। বলেন, ব্যবসা করতে হলে মেইন সোর্স হলো ব্যাংক। ব্যাংক যদি লোন না দেয় তাহলে ব্যবসা দাড় করানো সম্ভব নয়। আমি ব্যাংকিং লেনদেন সততার সহিত করতে পেরেছি বলেই আমি আজ এতদুর আসতে পেরেছি।