• ২৩ লাখ ভারতীয় বাংলাদেশে কাজ করছে আর বাংলাদেশিরা কাজের খোজে অথৈ জলে ভাসছে।

    received 10211234847201857 - ২৩ লাখ ভারতীয় বাংলাদেশে কাজ করছে আর বাংলাদেশিরা কাজের খোজে অথৈ জলে ভাসছে।

    পজিটিভ ডেস্কঃ

    প্রিভিলেজ কিড এর টাইম লাইন থেকে সংগৃহীত…. হায়রে বাংলাদেশ !!

    বাংলাদেশের মানুষ সাগরে ভাসছে, আর আমাদের প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয় বলছে, “এইটা দেখা তাদের মন্ত্রণালয়ের কাজ নয়। আমি হতভম্ব । এই মানবিক বিপর্যয় নিয়ে সারা বিশ্বে তোলপাড় চলছে। অথচ তার নাগরিকদের নিয়ে বিস্ময়কর রকমের নির্বিকার বাংলাদেশ সরকার। এটা অচিন্তনীয় ও অমানবিক। আমরা মানুষ নই,ঊনমানব । মানুষ হলে আমরা এত নির্বিকার থাকতে পারতাম না।

    অনেকদিন ধরেই টেকনাফ থেকে সমুদ্রপথে ছোট-ছোট নৌকায় গাদাগাদি করে মানুষ বোঝাই করে পশুর মতো মালয়েশিয়া যাওয়ার খবর পাচ্ছিলাম আমরা। পাসপোর্ট নাই, ভিসা নাই, অল্প খরচে যাওয়া যায় বলে দরিদ্র এই মানুষগুলোর অনেকেই লোভে পড়ে ঝূকিপূর্ণ এই পথে বিদেশে যাচ্ছিলেন। এই অনিশ্চিত যাত্রায় কেউ-কেউ হয়তো পৌঁছেও যান স্বপ্নের বন্দরে। কিন্তু বেশিরভাগেরই ঠাঁই হয় বন্দীশিবিরে। অনেকের ঠাঁই হয় হাঙ্গরের পেটে। অবস্থা বেগতিক দেখলে দালালচক্র, নৌকার চালকরা যাত্রীদের ফেলে পালিয়ে যায়। তাদের না থাকে জ্বালানি, না থাকে পানি, না থাকে খাবার। কিছুদিন আগে থাইল্যান্ডের গহীন জঙ্গলে এক গণকবর আবিষ্কৃত হয়। এই গণকবর খুঁড়তে খুঁড়তে বেরিয়ে আসে একবিংশ শতাব্দীর ভয়াবহ এক মানবিক বিপর্যয়ের খবর। গণকবরে যাদের হাড়গোড় পাওয়া গেছে তাদের বেশিরভাগই বাংলাদেশী।

    দেশের মাথাপিছু আয় নাকি বেড়ে এখন ১৩১৪ মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে ! মাথাপিছু আয় যদি বেড়েই থাকে,তবে মানুষ কেন কাজের খোজে অবৈধ পথে বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছে ? অনেক তো উন্নয়নের কথা বলা হচেছ,এত উন্নয়নের পরও বাংলাদেশের মানুষ কেন জীবনের মায়া তুচ্ছ করে এত ঝূঁকি নিয়ে, শিশু কোলে নিয়ে নৌকায় উঠে যাচেছ। বিষয়টি কী এটাই প্রমাণ করে না যে ,দেশে উন্নয়ন ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ঘটেছে বলে যে কথাগুলো সরকার বলছে তার সঙ্গে বাস্তবতার কোনো মিল নেই !!

    আজ বিবিসি, সিএনএন সহ প্রায় সব বিশ্ব মিডিয়ার খবর হচ্ছে হাজারেরও বেশি বাংলাদেশি আন্দামান সাগরে ভাসছে! প্রতিটা খবর পড়ি বা দেখি আর মানুষ হিসেবে আরও খাটো হয়ে যাই; লজ্জায়-ঘৃণায় আমার মাথা হেঁট হয়ে আসে। দুয়েকটা খবর দেখে আমার চোখ ফেটে কান্না আসছিল। গোটা বিশ্বের তথাকথিত সব সভ্য মানুষের চোখের সামনে ৮ হাজার নারী-পুরুষ-শিশু সাগরে ভাসছে, নিশ্চিত মৃত্যুর জন্য অপেক্ষা করছে, এটা আসলে ভাবা যায় না, মানা যায় না। গত কয়েকদিন ধরে থাইল্যান্ড ,ইন্দোনেশিয়াও মালয়েশিয়ার কূলে ভিড়তে না পারা যেসব হতভাগ্য মানুষের ছবি দেখছি, সেগুলির সাথে ১৮৫০ দশকের আফ্রিকা এবং আমেরিকার দাসদের করুণ অবস্থারই শুধু তুলনা মেলে! হাজার হাজার নারী-পুরুষ-শিশু দিনের পর দিন, এমনকি মাসের পর মাস খেয়ে না খেয়ে সাগরে সাগরে ভাসছে। তৃষ্ণা মেটাতে এরা নিজেদের প্রস্রাবও পান করছে। ঢাকায় প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের বা গণভবনের শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত অফিসে বা বাসায় বসে সেই মানুষগুলোর অবস্থা কল্পনা করাও সম্ভব নয়।

    ২৩ লাখ অবৈধ ভারতীয় বাংলাদেশ থেকে রোজগার করে ভারতে টাকা পাঠাচেছ আর লাখ লাখ বাংলাদেশী কিনা কাজ না পেয়ে মৃত্যুর ঝুঁকি নিয়ে দেশ ছেড়ে পালাচ্ছে। হায়রে বাংলাদেশ !!

    আসুন,আমরা মধ্যম আয়ের দেশ। আমরা বিনা শুল্ক ট্রানজিট দিই।আমরা মেয়র উৎসব করি। আমরা সীমান্ত জয়ের উৎসব করি। আমরা ব্যাংক ব্যালান্স চেক করি। আমরা অবৈধ ভারতীয়দের কাজ দিই। আর অবৈধ বাংলাদেশীরা সমুদ্রে ভাসুক,থাইল্যান্ড কিংবা মালয়েশিয়ার গভীর জঙ্গলে মারা যাক। জয় বাংলা!